এগ্রিবিজনেস বিষয়ে উচ্চ শিক্ষা ও ক্যারিয়ার গড়ার নির্ভরযোগ্য প্রতিষ্ঠান এ্যাডাস্ট

কৃষি প্রধান বাংলাদেশের দেশের জিডিপির প্রায় ১৩. ০২%কৃষির অবদান। বর্তমানে কৃষি শুধুমাত্র উৎপাদন দিয়ে সীমাবদ্ধ নয়, বেড়েছে এর ব্যাপকতা, পাশাপাশি কৃষি পণ্য বন্টন ও বাণিজ্যিকীকরণ, বাজারজাতকরণ, কৃষি পণ্য রপ্তানি ও উন্নয়ণে বাংলাদেশ তেমন অগ্রসর হতে পারেনি যার ফলে কৃষকরা তাদের ন্যায্যমূল্য ও দেশ প্রত্যাশিত রপ্তানি আয় থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। আমাদের দেশে প্রায় ৩০০ এগ্রিবিজনেস কোম্পানি কাজ করছে, সুতরাং এগ্রিবিজনেস সেক্টরে রয়েছে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে লাখ কর্মসংস্থানের সুযোগ। দেশে কৃষি ব্যবসায় রয়েছে প্রচুর সম্ভাবনা তবে প্রয়োজন দক্ষ ও মেধাবী গ্রাজুয়েট।

হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজনেস বিভাগের প্রফেসর রয় গোল্ডবার্গ ও জন ডেভিস পঞ্চাশের দশকে সর্বপ্রথম এগ্রিবিজনেস বা কৃষি ব্যবসা শব্দটি প্রবর্তন করেন।

কৃষি ব্যবসা তথা এগ্রিবিজনেস বাংলাদেশের অর্থনীতিতে এক যুগান্তকারী অধ্যায়ের সূচনা করেছে। বাংলাদেশে সর্বপ্রথম অতীশ দীপঙ্কর ইউনিভার্সিটি অব সায়েন্স এন্ড টেকনোলজি (এড্যাস্ট) ২০ এপ্রিল ২০০৬ সালে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের অনুমোদন সাপেক্ষে এগ্রিবিজনেস বিভাগ প্রতিষ্ঠা করে  এবং এগ্রিবিজনেস বিষয়ের উপর উচ্চ শিক্ষার সুযোগ সৃষ্টি করে।

বিশিষ্ট শিক্ষানুরাগী ও দেশবরেণ্য সাবেক ছাত্রনেতা জনাব মোঃ লিয়াকত আলী সিকদার এর নেতৃত্বে একুশ সদস্য বিশিষ্ট বোর্ড অব ট্রাস্টিজের সম্মানিত সদস্যবৃন্দ এগ্রিবিজনেস সহ ফার্মেসি, টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং,ব্যবসা প্রশাসন, এমপিএইচ,ইলেকট্রিক্যাল এন্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং,কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারিং,কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইনফরমেশন, ইলেকট্রনিক এন্ড টেলিকমিউনিকেশন ইঞ্জিনিয়ারিং আইন,  ইংরেজী, এডুকেশন, অর্থনীতি বিভাগের একাডেমিক ও প্রশাসনিক কার্যক্রম স্থায়ী ক্যাম্পাসে সুষ্ঠভাবে পরিচালনার জন্য নিরলসভাবে প্রয়োজনীয় সহযোগিতা প্রদান করে যাচ্ছেন।

প্রাচ্যের অক্সফোর্ড খ্যাত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক স্বনামধন্য শিক্ষক ও দেশ বরেণ্য শিক্ষাবিদ প্রফেসর ড. মোঃ সেকুল ইসলাম অত্র বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য হিসেবে বর্তমানে নিয়োজিত আছেন।
০৪ নভেম্বর,২০১৯ সালে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মহামান্য রাষ্ট্রপতি কৃষি ব্যবসা তথা এগ্রিবিজনেস বিষয়টি বিসিএস (কৃষি) এর অধীনে কৃষি বিপণন অধিদপ্তরের টেকনিক্যাল ক্যাডারে অন্তর্ভুক্ত করেছেন। বর্তমানে বাংলাদেশে এগ্রিবিজনেস বিষয়ের উপরে সরাসরি উচ্চশিক্ষা শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, খুলনা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রাতিষ্ঠানিকভাবে চালু রয়েছে।

তবে বেসরকারি পর্যায়ে একমাত্র অতীশ দীপঙ্কর ইউনিভার্সিটি অব সায়েন্স এন্ড টেকনোলজি (এড্যাস্ট) এগ্রিবিজনেস বিষয়ের উপরে উচ্চ শিক্ষার দ্বার উন্মোচন করেছে।
বাংলাদেশ একটি কৃষি নির্ভর রাষ্ট্র। দেশের কৃষিবিজ্ঞানি এবং কৃষকদের অক্লান্ত পরিশ্রমের ফলে এক সময়ের খাদ্য ঘাটতির এই বাংলাদেশ আজ খাদ্য উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূর্ণ রাষ্ট্রে পরিণত হয়েছে। দেশের চাহিদা মিটিয়ে কিছু কৃষি পণ্য আজ আমরা বিদেশেও রপ্তানি করছি।

তবে খাদ্য উৎপাদনে বিপ্লব ঘটিয়ে ফেললেও কৃষি পণ্যের সঠিক বাজারজাতকরণ, ভাল্যু এডিশন, সংরক্ষণ বা রপ্তানির মতো উৎপাদন পরবর্তী গুরুত্বপূর্ণ বাণিজ্যিক কার্যক্রমে তেমন উন্নয়ন সাধিত হয়নি। যার ফলশ্রুতিতে দেশের কৃষক ন্যায্য দাম ও সাধারণ ভোক্তারা সঠিক দামে কৃষি পণ্য পাওয়া থেকে অধিকাংশ সময়ই বঞ্চিত হচ্ছে।
দেশে উৎপাদিত কৃষি পণ্যের প্রকৃত ব্যবহার ও সঠিক মূল্য প্রাপ্তি থেকে আমরা প্রায় বঞ্চিত হই। তাই কৃষি পণ্য এবং কৃষি উৎপাদন সহায়ক বিভিন্ন উপকরণ যেমন বীজ, সার, কীটনাশক ইত্যাদির এই ব্যবসার প্রতি নজর দেওয়ার সময় এসেছে, যা অন্যান্য পণ্যের ব্যবসা থেকে কিছুটা ভিন্ন প্রকৃতির।

উৎপাদন সিদ্ধান্ত এবং উৎপাদন প্রযুক্তি নির্ধারণের আগেই বিপনন বিবেচনায় শুরু হয়। সুতরাং কৃষি উৎপাদন বৃদ্ধি করা এবং বর্ধিত উৎপাদন বজায় রাখার ক্ষেত্রে এগ্রিবিজনেসর ভূমিকা অনস্বীকার্য।
এছাড়াও অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক বাজারের চাহিদা মোতাবেক বহুমুখী কৃষি পণ্য উৎপাদন চাহিদা ও যোগানের প্রেক্ষাপট নিরূপণ এবং মূল্য পরিস্থিতি বিশ্লেষণ নিত্য প্রয়োজনীয় কৃষি পণ্যের দাম প্রবনতা অনুমান করা এবং এতদসংক্রান্ত তথ্য ব্যবস্থাপনা এবং প্রচার করার ক্ষেত্রে এগ্রিবিজনেস ডিগ্রী দেশের অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে।এগ্রিবিজনেস বিভাগ থেকে পাশকৃত ছাত্রছাত্রীরা দেশ ও বিদেশের চাকরী, ব্যবসা-বাণিজ্য, শিক্ষকতাসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে তাদের মেধা ও দক্ষতার স্বাক্ষর রেখে চলছে।

 

এগ্রিবিজনেস বিভাগে ভর্তির যোগ্যতা ও অন্যান্য প্রয়োজনীয় তথ্যঃ

স্বল্প খরচে গুণগত মানসম্পন্ন শিক্ষা নিশ্চিতের লক্ষ্যে এগ্রিবিজনেস বিভাগের অধীনে প্রতিবছর স্প্রিং (Spring), সামার (Summer) এবং ফল (Fall) এই তিন সেমিস্টারে বিবিএ-ইন এগ্রিবিজনেস এবং ইএমবিএ-ইন এগ্রিবিজনেস প্রোগ্রামে ছাত্র-ছাত্রী ভর্তি করা হয়।
স্প্রিং সেমিস্টার নভেম্বর মাস থেকে জানুয়ারি মাস,সামার সেমিস্টার মার্চ থেকে মে মাস এবং ফল সেমিস্টার জুলাই মাস থেকে সেপ্টেম্বর মাস পর্যন্ত ছাত্র-ছাত্রী ভর্তি করা হয়। এইচএসসি পাস কৃত শিক্ষার্থীদের এখানে অধ্যায়নের সুযোগ রয়েছে।

এছাড়াও এখানে সাধারণ কৃষি, মৎস ও কৃষি বনায়ন বিষয়ে ডিপ্লোমা ডিগ্রীধারীদের অনার্স কোর্সে ভর্তি করা হয় অথবা কৃষি বনায়ন বিষয়ে ডিপ্লোমা ডিগ্রীর শেষ করে বিএজিএড ডিগ্রী অর্জন করেছে তারা সরাসরি ইএমবিএ- ইন এগ্রিবিজনেস প্রোগ্রামে ভর্তি হতে পারবে।
এই বিশ্ববিদ্যালয়ের চাকরিজীবীদের জন্য সান্ধ্যাকালীন শিফটে ভর্তির সুযোগ আছে। করোনা মহামারীর কারণে বর্তমান সময়ে এডমিশন ফেয়ার উপলক্ষে এগ্রিবিজনেস সহ অন্যান্য বিভাগে ভর্তি ফি এর উপরে ৫০% ছাড় এবং টিউশন ফি এর উপরে ৪০% ছাড়ে আগামী টিউশন ফি ১৫ জুন পর্যন্ত সামার সেমিস্টারের ভর্তির সুযোগ রয়েছে।

এগ্রিবিজনেস, এগ্রিকালচার পোল্ট্রি এন্ড লাইভস্টক, ফিশারিজ প্রভৃতি বিষয়ের উপর অভিজ্ঞ ও স্বনামধন্য শিক্ষকমন্ডলী দ্বারা এগ্রিবিজনেস বিভাগের একাডেমিক কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। সম্পূর্ণ বিনামূল্যে শিক্ষার্থীদের জন্য নিজস্ব পরিবহনের সুব্যবস্থা রয়েছে।

এই বিভাগের শিক্ষার্থীদের নিয়ে একাডেমিক পড়াশোনার পাশাপাশি বিভিন্ন এগ্রো ফার্ম পরিদর্শন করা হয় যার ফলে শিক্ষার্থীদের প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার পাশাপাশি শিল্প-কারখানায় বাস্তবে এগ্রিবিজনেস বিষয়ের প্রয়োগ দেখার সুযোগ তৈরি হয় । অত্র বিভাগের শিক্ষার্থীদের ক্যারিয়ার বিষয়ে নিয়মিত দিকনির্দেশনা প্রদান করা হয়।

শিক্ষার্থীদের জন্য রয়েছে সমৃদ্ধ লাইব্রেরী। সময়ের সাথে সামঞ্জস্য রেখে প্রতিবছর সমসাময়িক এগ্রিবিজনেস বিষয়ের উপর বিভিন্ন সেমিনার, ওয়ার্কশপ এর আয়োজন করে থাকে। শুধু তাই নয় পড়াশোনার পাশাপাশি খেলাধুলা, বিভিন্ন জাতীয় প্রোগ্রামে এই বিভাগের শিক্ষার্থীরা নিয়মিত অংশগ্রহণ করে থাকে।

এগ্রিবিজনেস বিভাগ হতে পাসকৃত সকল মেধাবী ছাত্র-ছাত্রীরা দেশের কৃষি উন্নয়নের জন্য ব্যাপক অবদান রাখছে। আধুনিক প্রযুক্তি কাজে লাগিয়ে এগ্রিবিজনেস প্রসার ও উপযুক্ত শিক্ষায় শিক্ষিত করে প্রতিযোগিতামূলক অর্থনৈতিক চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় যোগ্য করে তোলার জন্য অতীশ দীপঙ্কর ইউনিভার্সিটি অব সায়েন্স এন্ড টেকনোলজি এবং এগ্রিবিজনেস বিভাগের শিক্ষকগণ নিরলসভাবে চেষ্টা চালিয়ে যেতে বদ্ধ পরিকর।

আমরা দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি, কৃষিরত্ন জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়তে এবং দেশের কৃষি শিক্ষা ও এগ্রিবিজনেসের উন্নয়নে অত্র বিশ্ববিদ্যালয়ের এগ্রিবিজনেস বিভাগ অগ্রণী ভূমিকা পালন করবে।

লেখক
মোঃ মাসুদুল হাসান
সহকারী অধ্যাপক ও বিভাগীয় কো-অর্ডিনেটর
এগ্রিবিজনেস বিভাগ
অতীশ দীপঙ্কর ইউনিভার্সিটি অব সায়েন্স এন্ড টেকনোলজি (এড্যাস্ট)
মোবাইল : 01723837696
ইমেইল : masudul@hotmail.com, masudul@adust.edu.bd
ভর্তি সংক্রান্ত বিস্তারিত তথ্যের জন্য:
https://adust.edu.bd/agribusiness/
https://www.facebook.com/ADUST2004

Leave a Reply